Breaking News
Home / ফিচার / রামগড়ে মুখি কচু চাষে স্বাবলম্বী হচ্ছেন কৃষকরা

রামগড়ে মুখি কচু চাষে স্বাবলম্বী হচ্ছেন কৃষকরা

মোঃমোজাম্মেল হোসাইন: রামগড়ে মুখি কচু চাষ করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন স্থানীয় কৃষকরা।দেশের বিভিন্ন এলাকায় কম বেশী মুখি কচু চাষ হয়।সবজি হিসেবে এর চাহিদা রয়েছে প্রচুর।চলতি মৌসুমে মুখি কচু চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন রামগড়  উপজেলার কৃষকরা। স্থানীয় মাটি কচু চাষের উপযোগী হওয়ায় ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলন ভালো হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
রামগড়ের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা যায়,নাকাপা,থলিবাড়ি,লামকু,খাগড়াবিল,বৈদ্য পাড়া, কাশি বাড়ি,দাতারামপাড়াসহ এ অঞ্চলের উচু নিচু পাহাড়ের ঢালু ও সমতল জমিতে চাষিরা এপ্রিল মাসে মুখি জাতের কচু রোপন করেন।এলাকাভেদে এটি ছড়া কচু,গুড়া কচু,দুলি কচু,মুখি কচু নামে পরিচিত। চারা রোপনের পর প্রয়োজনীয় পরিচর্যা ও সার প্রয়োগের ফলে ফুল আসে তিনমাস পর।কচুর ফুলও সবজি হিসেবে প্রচুর চাহিদা থাকায় তা বিক্রি হয় স্থানীয় বাজারে। এতে কৃষকদের বাড়তি আয়ের সুযোগ রয়েছে ।মুখি কচুর গাছ হলুদ হয়ে মরে গেলে সেপ্টেম্বর হতে কচু তোলা ও বিক্রি শুরু হয়। কচু উত্তোলনের শ্রমিক কিরন মালা ত্রিপুরা বলেন,প্রতি মণ ছড়া ক্ষেত থেকে তুলে বাজারে বিক্রির জন্য চাষিকে বুঝিয়ে দিলে  ২০০ থেকে ২৫০ টাকা পারিশ্রমিক পাই।

উপজেলা কৃষি অফিস  সূত্রে জানা যায়,  চলতি মৌসুমে রামগড়  উপজেলায় মোট ৩৭৫ হেক্টরজমিতে ৮৩৫ জন কৃষক/ কৃষাণি মুখিকচু চাষ করেছে। চলতি  মৌসুমে উপজেলায় হেক্টর প্রতি গড় কচু উৎপাদন প্রায়  ২৪ টণ।
উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শরিফ উল্লা বলেন,পার্বত্য অঞ্চলের মাটি কচু চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। আবহাওয়া ঠিক থাকায় চাষীরা ভালো ফলন পেয়েছে।
নাকাপার কচু চাষী শহিদুল বলেন, এ বছরে সময়মতো বৃষ্টি হওয়ায় কচুর বাম্পার ফলন হয়েছে। বর্তমান বাজারে প্রচুর চাহিদার পাশাপাশি দামও ভালো পাচ্ছে চাষীরা। কচু চাষে তুলনামুলক খরচ কম লাভ বেশী।লোকসানের ঝুঁকি কম। তাই কৃষকরা ধান ও অন্যান্য সবজির পাশাপাশি কচু চাষের দিকে ঝুঁকছে।
আরেক চাষী কামাল উদ্দিন বলেন, এ মৌসুমে আমি ১০০ শতক( ১ একর)জমিতে কচু চাষ করেছি। আবহাওয়া ভালো থাকায় প্রায় ১৪০ মণ কচু উৎপাদন হয়েছে। প্রতি মণ কচুর দাম বাজারে ১২০০ থেকে ১৪০০ টাকা। আর এতে ধানের তুলনায় কচু চাষ করেই বেশি আয় হয়েছে।

কচু ব্যাবসায়ী সালে আহম্মদ  বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে চাহিদা মিটিয়ে কচু এখন দেশের বিভিন্ন জেলায় বিশেষ করে  কুমিল্লা, নোয়াখালী, ঢাকাসহ বড় বড় পাইকারি বাজারে স্থান করে নিয়েছে। এবছর দাম ভালো থাকায় অধিক লাভের সম্ভাবনা দেখছি।

About admin

Check Also

নওগাঁয় ন্যায্য দাম পাচ্ছেন না সবজির চাষিরা

নাদিম আহমেদ অনিক, নওগাঁ প্রতিনিধি- সবজি এলাকা হিসেবে খ্যাত উত্তরের জেলা নওগাঁয় এবার সবজির উৎপাদন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *