সিরাজদিখান ( মুন্সীগঞ্জ)  প্রতিনিধিঃ সিরাজদিখান  উপজেলায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক তরুণীকে একাধিক বার ধর্ষণ করেছে তার প্রেমিক। এ ঘটনায় ধর্ষিতা বাদী হয়ে ওই প্রেমিকের বিরুদ্ধে গত ২২ তারিখ   রাতে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের শিকার পুর গ্রামের এক তরুণী। পার্শ্ববর্তী কেয়াইন গ্রামের আবু তালেব ভুইঁয়ার  ছেলে  নাহিদ ভুইঁয়া (২৫)  পথে মেয়েটিকে উত্যক্ত করতো। এ নিয়ে মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি নাহিদ ভুইয়ার অভিভাবকদের জানানো হয়। কিন্তু এতে কোনো কাজ হয়নি। বিয়ের প্রলোভনে নাহিদ ভুইঁয়া  মেয়েটির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে।
এ অবস্থায় গত তিন বছর যাবৎ প্রেমিক নাহিদ ভুইঁয়া  জেলার বিভিন্ন স্থানে  ও তার বন্ধুর  বাড়িতে নিয়ে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে    মেয়েটিকে ধর্ষণ করতে থাকে। এ বিষয়টি নিয়ে উভয় পরিবারের মধ্যে কয়েক দফা মিমাংসার বৈঠক হলেও কোনো সমঝোতা হয়নি। এর ফলে গত ২২ তারিখ  রাতে মেয়েটির বাদী হয়ে নাহিদ ভুইঁয়াসহ তার বাবা মার  বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ ও মারপিটের  অভিযোগ  দায়ের করলেও এখনও মামলা নেননি পুলিশ।   থানার অভিযোগের বিষয়টি  স্থানীয় চেয়ারম্যান জানতে পারে পরে চেয়ারম্যান আশরাফ আলী তার      পরিষদেে তিন বার  বৈঠক করে টাকা দিয়ে  মিমাংসার চেষ্টা করলে মেয়েটি বিষ পান করে আত্মহত্যা চেষ্টা করে পরে মেয়েটিকে ঢাকা মিডফুট হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে মেয়েটির পরিবারা  তার পরে-ও  তাদের দাবি  যেনো ঐ প্রেমিকের সাথেই  বিয়ে হয়। এ বিষয়ে  চেয়ারম্যান  আশরাফআলী জানান মিমাংসার জন্য চেষ্টা করেছিলাম তবে ধর্ষণের বিষয়ে না।
সিরাজদিখান থানার ওসি মোঃ ফরিদ উদ্দিন জানান উভয় পক্ষের মধ্যে মিমাংসা হওয়ার কথা ছিলো তাই মামলা নেওয়া হয় না। এবিষয়ে মামলা দিতে চাইলে আমরা মামলা নিবো।