Breaking News
Home / উপ-সম্পাদকীয় / শ্রীনগর উপজেলাবাসীর প্রাণ ভ্রমরা ইউএনও রহিমা আক্তার

শ্রীনগর উপজেলাবাসীর প্রাণ ভ্রমরা ইউএনও রহিমা আক্তার

মোঃ আঃ কাইয়ুম ও জাকির লস্কর ঃ করোনা ভাইরাসের কোভিট-১৯) মহামারী থেকে শ্রীনগর উপজেলাবাসীকে সচেতন ও সার্বিক সহযোগী করার উদ্দেশে জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারের নির্দেশনায় জনসাধারনকে নিরাপদ ও সুরক্ষা রাখতে খুব একটা রক্ষা সামগ্রী ছাড়াই রক্ষা কবজ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে শ্রীনগর উপজেলা বাসীর প্রাণ ভ্রমরা নারী কর্মকর্তা ইউএনও মোসাৎ রহিমা আক্তার। তিনি এই উপজেলায় যোগদান করেই নিজের মাতৃভুমি মানুষগুলোর এ উপজেলার মানুষকে খুব আপন করে নিয়েছে। মহামারী আকার ধারন করা ভাইরাস সর্ম্পকে সচেতন ও সর্তক করতে বড় আয়তনের শ্রীনগর উপজেলার মানুষকে বার বার ঘরে থাকার অনুরোধ করেন এবং বলেন আপনারা ঘরে থাকুন সুস্থ্য থাকুন নিরাপত্তার জন্য আল্লাহ রহমতে আমরা আপনাদের পাশেই আছি। তিনি উপজেলার জনগণকে নিরাপদ ও সুস্থ রাখতে আপ্রাণ চেষ্টা করছে এই নারী কর্মকর্মা রহিমা আক্তার। তিনি উপজেলা বাসীর জন্য এ যেন এক আর্শিবাদ। তিনি নিশ্চয়ই কোন রতœগর্ভা মায়ের সন্তান। জীবন বিপন্ন করে সরকারী নির্দেশনা ও বিবেক থেকে এ মানুষ গুলোকে নিরাপদে রাখার জন্য তিনি নিজে ভাল করেনই জানেন এ ভাইরাসে নিজে আক্রান্ত হতে পারেন তবুুুুও উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে ছুটে চলছেন বিরতিহীনভাবে। ত্রাণ তদারকী থেকে শুরু করে আড়িয়াল বিলের কৃষকদের পাকা ধান কেটে ঘরে তুলার জন্য শ্রমিক সংকটে নিরসনে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন এই নির্বাহী অফিসার রহিমা আক্তার। তিনি স্পষ্ট বুঝতে পারছেন, এ করোনা ভাইরাসে যদি প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আক্রান্ত হন তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সরকারকে হিমশিম খেতে হবে। এজন্যই তিনি নিজেকে এক মুহুর্তের জন্য ধমিয়ে রাখতে পারছেন না। অন্যান্য প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের নিয়ে তিনি বিপন্ন জাতিকে সচেতন ও সকর্ত করতে নানা দিক দিয়ে চেষ্টা করছে এই মমতাময়ী প্রাণ ভ্রমরা নারী রহিমা আক্তার। এই মরনব্যাধি ভাইরাস সংক্রমন প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নির্দেশে লকডাউনে থাকা গৃহবন্দী অভুক্ত অসহায় পরিবারে বাড়ীতে বাড়ীতে নিজে গিয়ে মানবিক সহায়তার খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন এবং সঙ্গে সঙ্গে অসহায় মানুষের নানার খাজ খরব নিয়ে সে বিষয়েও সমাধান করে যাচ্ছেন এই মানবিক নারী কর্মকতার্। অপরাধ দমনে কঠোর হলেও মানুষ হিসেবে তিনি অসহায় মানুষের বিশ্বস্ত আশ্রয়স্থল। তিনি এখানে যোগদান করার পর হতে মানুষের মধ্যে অপরাধ প্রবনতা হ্রাস পেয়েছে অনেকাংশে। লোক লজ্জার ভয়ে অনেক পরিবার অভুক্ত থেকে ফোনে তার সাহায্যে কামনা করলে তিনি তাৎক্ষনিক ঐ অসহায় পরিবারটির বাড়ীতে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিতে একটুও দেরি করেনি। তাই উপজেলাবাসী এই নারী কর্মকর্তাকে তাদের প্রাণ ভ্রমরা হিসেবেই জানেন। কোথায় কোন সাহায্যে না পেলে অসহায় নিরীহ মানুষ জানেন তাদের এই মমতাময়ী প্রাণ ভ্রমরা কাছে গেলে অবশ্যই সাহায্যে পাবে। তাই কেউ তার কাছে আসতে একটু দেরি করেন না। এত পরিশ্রম করার পরেও এই নারী কর্মকর্তা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে লকডাউন করা বাজার ঘাট বন্ধ করছে কি না খোজ নিচ্ছেন সার্বক্ষনিক। তাছাড়া লকডাউনে উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্ব পূর্ণ পয়েন্টে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ করোনা ভাইরাস সম্পর্কে মানুষকে সচেতন ও সর্তক করতে বারং বারং হ্যান্ড ওয়াশ ও সাবান দিয়ে হাত ধুয়া, জরুরী প্রয়োজনে বাহিরে বের হলে মাস্ক ব্যবহার করাসহ বিভিন্ন সর্তকতা মুলক নির্দেশনা দিয়েই যাচ্ছেন অনরত। তিনি সব সময় মানুষের জন্য একটু কিছু করতে পারলে আতœতৃপ্তি পান। তাই মানুুষের সেবাতে করে নিজের জীবন উসর্গ করতে চান এই মহষী নারী রহিমা আক্তার। তিনি আরো বলেন মানবতার পাশে সকলের দাড়ানো কর্তব্য এবং প্রত্যেকেই যদি স্ব-স্ব অবস্থান থেকে মানবতার জন্য এগিয়ে আসে তাহলে এ বিশ্ব হতো ভালবাসায় পরিপূর্ন একটি বিশ্ব থাকতো না জাতিতে জাতিতে ভেদাভেদ। সবাইকে মানবতার জন্য এগিয়ে আসতে আহবান জানান তিনি সেই সাথে ভবিষ্যতে সব সময় মানবতার পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন এই কর্মকর্তা। তিনি উপজেলাবাসীকে বলেন আপনারা আমাদের সহযোগিতা করুন, আপনারা ঘরে থাকুন নিরাপদে নিশ্চিন্তে থাকুন, সুস্থ্য ও সমাধানে থাকুন। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন আছে আপনাদের পাশে সার্বক্ষনিক।

About admin

Check Also

মোনালিসার মোহমায়া 

সৈয়দ মুন্তাছির রিমন: তোমি  ? তুমি কি সেই ছবি ? যা  শুধু পটে আকাঁ এক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *