Breaking News
Home / অর্থনীতি ও শিক্ষা / টাকা দিতে না পারায় এস.এস সি পরীক্ষা দিতে দিলেন না প্রধান শিক্ষক!

টাকা দিতে না পারায় এস.এস সি পরীক্ষা দিতে দিলেন না প্রধান শিক্ষক!

মোঃ মস্তফা, মুন্সীগঞ্জঃ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার খাসমহল বালুচর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র আবু বকর (১৬) ভর্র্তির টাকা দিতে না পারায় এ বছর এস.এস.সি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে পারলো না। এই খেলাটা খেলেছেন বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আলী আশ্রাফের। এমনকি ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের কাছে বলেও ১০ম শ্রেণিতে ভর্তি হতে পারেনি আবু বকর। ভর্তি না হতে পেরে অনিশ্চিত আবু বকরের লেখাপড়া।

আবু বকর উপজেলার খাসনগর গ্রামের মোঃ ইউনুস এর পুত্র। সাংসারিক অভাব অনটন থাকার পরও আবু বকর নিয়মিত স্কুলে যেতেন। লেখাপড়া করে মানুষের মত মানুষ হওয়াই ছিল তার একমাত্র স্বপ্ন। ভর্তি হতে না পেরে চুর্ণবিচুর্ণ হয়ে গেছে তার লালিত স্বপ্ন। ২০১৮ সালে নবম শ্রেণি থেকে ২০১৯ সালে দশম শ্রেণিতে উঠেছে আবু বকর। দশম শ্রেণিতে ক্লাস করতে নিষেধ করেননি কিন্তু টাকার জন্য ভর্তি করেন নি তিনি। মোটা অংকের টাকা চাই তার। ২০২০ সালে এস.এস. পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের কথা আবু বকরের।

শিক্ষার্থী আবু বকর বলেন, পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা দিতে না পারায় আলী আশ্রাফ স্যার আমাকে ভর্তি নেয় নাই। আমার বন্ধুদের ভিতরে অনেককেই অনেক টাকার বিনিময়ে তিনি ভর্তি করিয়েছেন। আমার বাবা ম্যানেজিং কমিটির সুপারিশ ও সিগনেচারসহ পাঁচশত টাকা নিয়ে মাসের পর মাস ঘুরেছে আমাকে ভর্তি করানোর জন্য। আমার বাবাকে স্যার বলেন আপনার ছেলেকে কাজে লাগিয়ে দেন। লেখাপড়া করার দরকার নাই। এখনো যদি আমাকে ভর্তি নেয়া সম্ভব হয় তাহলে আমি লেখাপড়া করে মানুষের মত মানুষ হলে আমার বাবার স্বপ্নটা পূরণ করতে পারব।

এদিকে খাসমহল বালুচর উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য মোঃ আলেনুর বলেন, এ বছর যা হয়েছে তো হয়েছেই। আগামী বছর আমরা তাকে ফ্রিতেই এই স্কুলে পড়াবো।

এ বিষয়ে খাসমহল বালুচর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আলী আশ্রাফের নিকট জানতে চাওয়া হলে তিনি কোন কথা বলতে রাজি হন নি।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী আব্দুল ওয়াহিদ মোঃ সালেহ বলেন, এরকম একটা বিষয় ইতিমধ্যে শুনেছি। প্রশাসন থেকেও আমাকে জানিয়েছে। ওই প্রধান শিক্ষক যদি সরকারী নিয়ম বহির্ভূত কোন কাজ করে থাকেন তাহলে আমরা তা তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করবো।

About admin

Check Also

অশ্লীলতার  চরম পর্যায়ে বিপাশা কবির

বিপা চৌধুরী – মিরপুর প্রতিনিধি: একসময় বাংলা চলচ্চিত্রের অশ্লীল নায়িকা হিসেবে খ্যাত ছিলেন মুনমুন, ময়ূরী।  কিন্তু  …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *