Breaking News
Home / উপ-সম্পাদকীয় / বাড়ী থেকে দুই গৃহবধূকে উঠিয়ে নিয়ে কোপানোর ঘটনার মামলা নেয়নি পুলিশ!

বাড়ী থেকে দুই গৃহবধূকে উঠিয়ে নিয়ে কোপানোর ঘটনার মামলা নেয়নি পুলিশ!

সিরাজদিখানে সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে আতঙ্কিত একটি পরিবার

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃমুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের চালতিপাড়া গ্রামে ১৩ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বাড়ী থেকে উঠিয়ে নিয়ে দুই জা রুমা বেগম (৩৫) ও লিমা বেগম (৩২)দের কুপিয়ে জখম করে শেখ সেলিম ও মোঃ ছাইফুলসহ তাদের সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন। শেখ সেলিম উপজেলার চালতিপাড়া গ্রামের শেখ মন্তাজ উদ্দিনের ছেলে ও একই গ্রামের কাজীম উদ্দিনের ছেলে মোঃ ছাইফুল। বর্তমানে ওই দুই গৃহবধূ ঢাকাস্থ একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগীদের পরিবার বেশ কয়েকবার সিরাজদিখান থানার মামলা করতে গেলেও মামলা নেয়নি পুলিশ। পরবর্তীতে গৃহবধূর পরিবার আদালতে গিয়ে সি.আর মামলা করে। দুই গৃহবধূকে কোপানোর পর ওই সন্ত্রাসী বাহীনির লোকজন এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। ভুক্তভোগী ওই পরিবারের সদস্যদের মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রতিনিয়ত হুমকি দিয়ে আসছে শেখ সেলিম ও মোঃ ছাইফুলসহ তার লোকজন। এমনকি ওই পরিবারের স্কুল পড়–য়া বাচ্চাদের স্কুলে যেতে দিচ্ছে না তারা। বর্তমানে ওই পরিবারের লোকজন সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে।

গৃহবধূদের শ^াশুরি জরিনা বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, সেলিম ছাইলফুল সন্ত্রাসী ও বাবাখোর। ওরা আমার দুই বৌকে বাড়ী থেকে উঠাইয়া রাস্তায় নিয়া দাও দিয়া কোপাইছে। শেখ হাসিনার কাছে এর বিচার চাই।

৮ম শ্রেণী পড়–য়া গৃহবধূ রুমা বেগমের ছেলে সিফাত (১৪) বলেন, কয়দিন আগে সেলিম ছাইলফুল আমার মা এবং আমার কাকিকে বাড়ী থেকে উঠিয়ে নিয়ে দা দিয়া কোপাইছে। এর পর থেকে আমরা স্কুলে যাওয়ার পথে তারা আমাদের মারধর করে স্কুলে যেতে দেয় না। তাদের ভয়ে আমরা ঠিক মত স্কুলে যেতে পারি না।

এব্যাপারে কেয়াইন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফ আলী মুখ খুলতে রাজি নন বলে উপজেলায় কর্মরর্ত সাংবাদিকদের জানান।

উপজেলা চেয়ারম্যান হাজী মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, কয়েকদিন আগে চালতিপাড়া গ্রামে যে ঘটনাটি ঘটেছে। সেটা একটা লোমহর্ষক ঘটনা। তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিৎ। প্রশাসনের কাছে দ্বাবী করবো তারা দুই পক্ষকে কিভাবে দমন করা যায় এ ব্যবস্থা তারা যেন গ্রহন করে।

সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফরিদ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গত ১৩ সেপ্টেম্বর চালতিপাড়া গ্রামে দুই পক্ষের একটি বিরোধকে কেন্দ্র করে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় একাধিক লোক আহত হয়েছে। কিন্ত তারা থানায় কোন মামলা করে নাই। শুনেছি তারা বিজ্ঞ আদালতে সি.আর মামলা দায়ের করেছে। আদালতের কোন কাগজ আমাদের কাছে এখনো আসে নাই। আদালত যে আদেশ দিবে সেই আদেশ আমরা পালন করবো।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন যাবৎ চালতিপাড়া প্রামের সেলিম গ্রুপ ও লিটন শামিমদেন সাথে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে পূর্ব শত্রুতা চলে আসছিল। এক পক্ষ আরেক পক্ষের বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমাও করেছে। আর এরই জের হিসেবে ওই দুই গৃহবধূকে বাড়ী থেকে উঠিয়ে নিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে শেখ সেলিম ও মোঃ ছাইফুলসহ তার সন্ত্রাসী বাহিনীল লোকজন।

About admin

Check Also

ইউজিসি পোষ্ট ডক্টোরাল ফেলোশিপ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন অধ্যাপক মিল্টন বিশ্বাস

মাসুম বিল্লাহ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: ধ্যাপক মিলটন সহ ১০ জন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের(ইউজিসি) পোস্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *